Comilla TV - The First online TV of Comilla

গ্রাহকদের স্বস্তি

ইভ্যালিতে ১০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে যমুনা

কুমিল্লা.টিভি

প্রকাশিত : ০২:৫৭ এএম, ২৮ জুলাই ২০২১ বুধবার | আপডেট: ০৩:১১ এএম, ২৮ জুলাই ২০২১ বুধবার

সাম্প্রতিক আলোচিত শীর্ষ -কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালিতে এক হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে যমুনা গ্রুপ। মঙ্গলবারএক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইভ্যালির পক্ষ থেকে তথ্য জানানো হয়। আর এতেই যেন আপাতত বড় ধরনের সংকট মোকাবেলা করেঘুড়ে দাড়ানোর পুজি পেল প্রতিষ্ঠানটি।

প্রাথমিকভাবে ২০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে দেশের শিল্প খাতের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় গ্রুপটি। ধারাবাহিকভাবে বিভিন্নপর্যায়ে এক হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের কথা রয়েছে যমুনার।

গ্রাহকদের পুরোনো অর্ডার ডেলিভারি নিয়ে মোহাম্মদ রাসেল বলেন, পুরোনো অর্ডার যেগুলো পেন্ডিং সেগুলো ডেলিভারিরব্যাপারে আমরা সর্বোচ্চ প্রায়োরিটি (অগ্রাধিকার) দিচ্ছি, প্রয়োজনে আমরা আরও বিনিয়োগের ব্যবস্থা করব।

বিনিয়োগ নিয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প গ্রুপ যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামীম ইসলাম বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশেরউন্নয়নে আমরা দেখছি যে, স্থানীয় -কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলো দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। যেমনযুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেত্রে আমাজন, চীনের ক্ষেত্রে আলিবাবা। তেমনি বাংলাদেশে ইতোমধ্যে নিজের একটি অবস্থান তৈরি করেছে দেশীয়-কমার্স ইভ্যালি। শুধু দেশের সাধারণ মানুষের স্বপ্নপূরণে কাজ করে যাচ্ছে। যমুনা গ্রুপ দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে দেশ দেশেরজনগণের কল্যাণে কাজ করছে। এখন থেকে ইভ্যালি এবং যমুনা গ্রুপ সেই স্বপ্নপূরণে একে অপরের অংশীদার হলো।

 

এমন বিনিয়োগকে স্বাগত জানিয়ে ইভ্যালির প্রতিষ্ঠাতা প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ রাসেল বলেন, একটি দেশীয় উদ্যোগ হিসাবেআমাদের পাশে আরেকটি দেশীয় প্রতিষ্ঠানকে পেয়ে আমরা সত্যিই আনন্দিত। যমুনার বিনিয়োগ ধারাবাহিক বিনিয়োগেরঅংশ এবং পরবর্তী ধাপেও তাদের বিনিয়োগের সুযোগ রয়েছে। বিনিয়োগ ইভ্যালির ভবিষ্যৎ উন্নয়ন এবং ব্যবসার পরিধিবৃদ্ধিতে ব্যয় করা হবে।

 

এর আগে গত শনিবার মধ্যরাতে ফেইসবুক লাইভে এসে ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাসেল বলেন, সর্বশেষ নির্দেশিকারকারণেরিফান্ডদেওয়া সম্ভব নয়; দেরিতে হলেও গ্রাহকদের পণ্যই দেওয়া হবে।

 

গত ১৬ জুন ইভ্যালি নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেখানে বলা হয়, গত ১৪ মার্চ পর্যন্ত ইভ্যালিরগ্রাহকের কাছে ২১৩ কোটি ৯৪ লাখ হাজার ৫৬০ টাকা এবং মার্চেন্টদের কাছে ১৮৯ কোটি ৮৫ লাখ ৯৫ হাজার ৩৫৪ টাকায়দেনা রয়েছে।