Comilla TV - The First online TV of Comilla

সাত বছরেও লাকসামের বিএনপি নেতা হিরু-হুমায়ুনের সন্ধান মিলেনি

ফারুক আল শারাহ:

কুমিল্লা.টিভি

প্রকাশিত : ০৫:২৩ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০২০ শুক্রবার

ক্যাপশন: সাত বছর ধরে নিখোঁজ লাকসামের বিএনপি’র দুই শীর্ষ নেতা সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ুন কবির পারভেজ।

ক্যাপশন: সাত বছর ধরে নিখোঁজ লাকসামের বিএনপি’র দুই শীর্ষ নেতা সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ুন কবির পারভেজ।

কুমিল্লার লাকসামের বিএনপি’র দুই শীর্ষ নেতা সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ুন কবির পারভেজ গুমের সাত বছর পূর্ণ হয়েছে আজ। দুই নেতাকে ফিরে পাবার আশায় স্বজনরা বছরের পর বছর পথ চেয়ে থাকলেও তাদের প্রতীক্ষার প্রহর যেন শেষ হয়না।
স্থানীয় বিএনপি ও দুই পরিবারের স্বজনদের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর রাত ৯টায় র‌্যাব সদস্যরা সাইফুল ইসলাম হিরুর মালিকানাধীন লাকসাম ফ্লাওয়ার মিলে অভিযান চালায়। এসময় ৯ জনকে আটক করা হয়। ওইদিন রাতেই তৎকালীন লাকসাম উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম হিরু, পৌরসভা বিএনপির সভাপতি হুমায়ুন কবির পারভেজ ও পৌর বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন একটি অ্যাম্বুল্যান্সযোগে লাকসাম থেকে কুমিল্লার উদ্দেশে রওনা দেন। পথিমধ্যে কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের আলীশ্বরে পৌঁছলে সাদা পোশাকধারী একদল লোক অ্যাম্বুল্যান্সটির গতিরোধ করে।
এসময় র‌্যাব পরিচয়ে তাদের আটক করে অন্য একটি সাদা মাইক্রোবাসে তুলে কুমিল্লার দিকে নিয়ে যায়। ওইদিন রাত সাড়ে ১২টার দিকে জসিম (অ্যাম্বুল্যান্সে থাকা) এবং লাকসামে গ্রেফতার হওয়া ৯ জনকে থানায় হস্তান্তর করেন র‌্যাব-১১ এর তৎকালীন উপসহকারী পরিচালক (ডিএডি) মো. শাহজাহান আলী। পরদিন সকালে তাদের জেলহাজতে পাঠায় পুলিশ। কিন্তু বাকি দু’জনের সন্ধান দিতে পারেনি র‌্যাব বা পুলিশ। নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের অন্যতম মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী তারেক সাঈদের নেতৃতে হিরু-হুমায়ুনকে গুম করা হয়েছে বলে শুরু থেকেই অভিযোগ করে আসছে স্থানীয় বিএনপি ও দুই পরিবারের স্বজনরা।
২০১৪ সালের ১৮ মে হুমায়ুন কবির পারভেজের বাবা রঙ্গু মিয়া গুমের অভিযোগ এনে কুমিল্লার আদালতে মামলা করেন। মামলায় তৎকালীন র‌্যাব-১১’র অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, ক্যাম্পের দায়িত্বে থাকা কোম্পানি-২’র মেজর শাহেদ হাসান রাজীব, ডিএডি শাহজাহান আলী, উপ-পরিদর্শক (এসআই) কাজী সুলতান আহমেদ ও অসিত কুমার রায়কে আসামি করা হয়।
আদালত মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য লাকসাম থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে নির্দেশ প্রদান করেন। কয়েক দফা সময় নিয়ে ২০১৪ সালের ১৫ অক্টোবর প্রথম তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে লাকসাম থানা পুলিশ। মামলার বাদী ওই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দিলে ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি আদালত মামলাটি সিআইডি পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ দেন। এরই মধ্যে ২০১৪ সালের ৩১ আগস্ট বাদী রঙ্গু মিয়া মারা গেলে আদালতে আবেদনের মাধ্যমে মামলাটির পরিবর্তিত বাদী হন হুমায়ুন কবির পারভেজের ছোট ভাই গোলাম ফারুক।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার জালাল উদ্দিন আহম্মদ চলতি বছরের ২৭ আগস্ট মামলার তদন্ত প্রতিবেদন কুমিল্লার ৬নম্বর আমলি আদালতে দাখিল করেন। এরপর মামলার বাদী ১০ নভেম্বর কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শারমিন রিমার আদালতে ওই তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দিলে পিবিআইকে মামলাটি তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়।
মামলার বাদী গোলাম ফারুক জানান, লাকসামের সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনে সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ুন কবির পারভেজ জনপ্রিয় মুখ। গত সাত বছর থেকে তাদের ফিরে আসার প্রতীক্ষার প্রহর গুনছি। কিন্তু আমরা জানিনা তাদের ভাগ্যে কি ঘটেছে।
মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট বদিউল আলম সুজন বলেন, দায়িত্ব পাওয়ার পর সাড়ে ৫ বছরে সিআইডি অন্তত ৬৩ বার আদালত থেকে সময় নিয়ে একটি প্রতিবেদন দিয়েছে। ওই প্রতিবেদন অগ্রহণযোগ্য হওয়ায় বাদী আদালতে নারাজি দেন। এরই প্রেক্ষিতে আদালত মামলাটি পিবিআইতে স্থানান্তরের নির্দেশ দেন।

এই বিভাগের জনপ্রিয়