Comilla TV - The First online TV of Comilla

নবীনগরে গভীর রাতে লাশ উত্তোলন করে সিন্দুকে ভর্তি

তরিকুল ইসলাম তরুন

কুমিল্লা.টিভি

প্রকাশিত : ০৪:১৫ পিএম, ২৯ জুলাই ২০২০ বুধবার | আপডেট: ০৪:১৬ পিএম, ২৯ জুলাই ২০২০ বুধবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগরের রতনপুর ইউনিয়নের ভিটি বিশাড়াম নয়াপাড়ায় গতকাল গভীর রাতে , কথিত বাচ্ছু ফকিরের লাশ উত্তোলন করে লোহার সিন্ধুকে ভরার ঘটনা ঘটে বলে স্থানীয় বাসীন্দারা ও ফকিরের ভাতিজারা জানায়। সূত্রে জনা যায় যে কথিত বাচ্ছু ফকির কখনও ফকিরী করেন নি।তিনি জম্মলগ্ন থেকে পাগল ছিলেন।তাই গ্রামবাসী তাকে বাচ্চু পাগল ডাকতো।

গত আশির দশকে দুষ্টামী করে বাচ্চু পাগলের প্রতিবেশী মঙ্গলমিয়া,সেফায়েত মিয়া,বাদশামিয়া,কবিরমিয়া,কামালউদ্দিন,শুজ্জুমিয়া একদিন বাচ্চুপাগলের জম্মদিন পালন করে। আর ঐ জম্মদিনে খানা ছিল এলাকার কিছু ঘরহতে রান্নার চাউল তুলে তার কিছু অংশ বিক্রী করে গুর ক্রয়করে সিন্নি তৈরী করে। অতপর সবাই ঐ এলাকায় রান্নাকৃত সিন্নি বিতরন সহ একসাথে বসে মজা করা।

আর এই মজা করার বিষয়টি ঐ গ্রামের একটি চক্র মাজার পুজারী দল বাচ্চু পাগলকে পুজি করে কথিত বাচ্চুকে ফকির বানিয়ে বছরের পর বছর ওরস নামে ব্যাবসা শুরু করে।প্রশাসন প্রথমে বাধা দিলেও পরে আর বাধা দেয় নি।

কারন তাদের দলটি আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে।এই ফকির বিয়ে করেনি।তার বাবার সহায় সম্পক্তি তার মৃত্যুর পর বাচ্চু পাগলের ওয়ারিশ ভাতিজারা পাওয়ার কথা।কিন্তু ঐ চক্রটি তার সম্পক্তি কয়েক জনের নামে ফাউন্ডেশন নামকরন করে নিয়ে যায।এবং ওরস নামে প্রতি বছর মাঘ মাসের২২ তারিখ আসলে গানবাজনা,ইসলামবিরোধী কার্য্যকলাপ করে আসছে।

গত বছর তার কবরে ঐ চক্রটি গর্তকরে লেপ,তোষক,বালিশ ঢুকিয়ে দেয় বলে স্থানী প্রতিবেশী ওবায়েদ উল্ল্যা জানায়।গতকালের ঘটনার বিষযে ওবায়েদ বলে

আজ অত্যান্ত ভারাক্রান্ত হৃদয় নিয়ে আপনাদের সামনে মুখের ভাষা হারিয়ে ফেলছি আজ ২৮/০৭/২০২০ ইং সকালে যখন ফোনটা আসে আমার কাছে। তখন ভাবি আমরা আজ কোথায় বসবাস করি? একেমন সমাজে আমাদের বসবাস? আবার আমরা মুসলমান হিসেবে দাবি করি আবার বলি আমরা সুন্নি?

রাসুল সাঃ উনার সুন্নত ও হাদিস যারা মেনে চলার চেষ্টা করে তাদের ধারা তো এমন মুসলিম বিরোধী কাজ হতে পারে না। প্রিয় গ্রামবাসী,আমি এখন মুল কথায় যাচ্ছি।

গত ২৭/০৭/২০২০ ইং রাত প্রায় ১১ টার দিকে ভিটি বিশাড়া (নয়াপাড়া) বাচ্ছু ফকিরে কবর ভিটী বিশাড়ার উত্তর পাড়ার মুর্শিদ ডাক্তারের নেতৃত্বে দুইবছর পূর্বে মারা যাওয়া সেই কবর খুড়ে কবর থেকে লাশ তথা হাড় কাপড়চোপড় এগুলো উঠিয়ে নতুন করে লোহার সিন্ধুকে ঢুকিয়ে ৮/৯ জন মানুষ কে দিয়ে আবার ঐ কবরে সিন্দু সহ ঢুকানোর চেষ্টা করে।

তখন বাচ্ছু ফকিরের ভাইয়ের ছেলে ফিহাদ এবং উর আম্মা সজাগ হয়ে টের পেয়ে যায় এখানে কি করছে। তখন তারা বাধা দিলে এরা তাদের কে গোপনে মেনেজ করার চেষ্টা করে। এরা রাজি না হওয়ায় কমিটির কথা বলে। এব্যাপারে কমিটির কর্মকর্তা মতিন সরকারের সাথে কথা বললে তিনি জানান এ বিষয়ে আমি কোন কিঁছু জানি না।

তার পর জিল্লু সরকারের সাথে কথা বলার পরে জিল্লু সরকার বলে আমরা কমিটির সকলে মিলে পাঠিয়েছি তাতেও ফিহাদ রাজি হয়নি।
ফিহাদের কথা হলো কাজ করলে দিনে করবেন রাতে কেন? তাছাড়া একবছর পূর্বে ও নাকি এই কবর খুড়ে রাতের অন্ধকারে কবরের ভিতর কম্বল বালিশ দেওয়া হয়েছিল তখন কেউ এই বাড়িতে ছিলো না।

এখন আমার জিজ্ঞেসা ভিটি বিশাড়া গ্রামের সকল সচেতন মহলের নিকট এগুলো কি হচ্ছে ভিটি বিশাড়া গ্রামে? আপনারা কি এই ব্যপারে কোন পদক্ষেপ নিবেন নাকি আমরা সারা এলাকার সকল মুসলমান এবং আলেম সমাজ কে আমরা জানবো?বিচারটা আপনাদের নিকট ছেড়ে দিলাম।

তাছাড়া প্রয়োজনে আমরা বাংলাদেশ ইসলামি আইন সংস্থার সহযোগিতা নিয়ে নবীনগর তথা ব্রাহ্মণ বাড়িয়া জেলা প্রশাসকের সহযোগিতা নিবো।

এই সব ইসলাম বিরোধী কাজের সাথে যারা জড়িত সে যেই হউক না কেন আমার ভাই থাকলে ও তাকে ক্ষমা করবো না ইনশাআল্লাহ।
আমার জানা মতে পৃথিবী সৃষ্টির পর এখন পযন্ত এই ধরনের ঘটনা ঘটেনি।

আইয়ামে জাহিলিয়াতের যুগেও এমন ধরনের ঘটনা ঘটেনি। এমন ইতিহাসের কেউ সন্ধান দিতে পারেনি।এ ব্যাপারে ওরস কমিটির সভাপতি আজিজ সরকার ও সদস্য মুর্শিদ জানান আমরা না বুঝে করে ফেলেছি।আমরা কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছি।আমরা আর ইসলাম বিরোধী কাজ করবো না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়